আর্লি-স্টার সম্পাদনা ডেস্ক:
বিজ্ঞানীরা বলছেন, ইংল‍্যান্ড এর অঞ্চলগুলোর এখন কোভিড এর ৪ নং স্তরে (tier 4)-এ যাওয়া উচিত।

এপ্রিলের পর থেকে সর্বোচ্চ কোভিডের মৃত্যুর সংখ্যা এবং ভাইরাসের দ্বিতীয় নতুন রূপ (স্ট্রেইন) আবিষ্কারের ফলে দেশটির বিভিন্ন মহল থেকে সতর্কবার্তা দেওয়া হচ্ছে যে, মন্ত্রীরা আরও ৬ মিলিয়ন মানুষকে কঠোর বিধিনিষেধে না রেখে বক্সিং দিবস পর্যন্ত অপেক্ষা করে খুব ধীর গতিতে কাজ করছেন।

স্বাস্থ্য সচিব, ম্যাট হ্যানকক ঘোষণা করেছেন যে, শনিবার থেকে ইংল্যান্ডের লকডাউন চার নম্বর (tier 4) স্তরে রাখা হবে। যুক্তরাজ্য ঘোষণা করেছে যে, দেশটিতে ৭৪৪ জনের মৃত‍্যু এবং সবচেয়ে বেশি ৩৯,২৩৭ জন আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে, যা এপ্রিলের শেষের দিকের সর্বোচ্চ রেকর্ডকেও অতিক্রম করেছে।

ইংল্যান্ডের মোট জনগণের ৪২% (সংখ‍্যায় প্রায় ২৪ মিলিয়ন) টিয়ার ৪ এর আওতায়, ৪৪% (সংখ‍্যায় প্রায় ২৫ মিলিয়ন) টিয়ার ৩ এর আওতায়। এক সপ্তাহের মধ্যে সারাদেশে এই ভাইরাসের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৭%, আর সংখ্যা বেড়েছে ১-১.৩ এ, স্কিলি দ্বীপপুঞ্জ একমাত্র অঞ্চল, যে অঞ্চলটি টিয়ার ১ এ আছে।

একজন বিশেষজ্ঞ সতর্ক করেছিলেন যে, “বিলম্ব করার অর্থ কেসের সংখ্যা অনেক বেশি, অনেক বেশি বৃদ্ধি পাওয়া” এবং তা নিচে নামিয়ে আনা কঠিন হয়ে যাবে।”

ওয়েলস, স্কটল্যান্ড এবং উত্তর আয়ারল্যান্ডে গত সপ্তাহে ঘোষিত করোনা ভাইরাসের নতুন রূপ ধারণ করায় সাম্প্রতিক দিনগুলিতে দেশব্যাপী কিছু বিধিনিষেধ ঘোষণা করা হয়েছে। এটি পূর্বে দেখা রূপের তুলনায় 70% বেশি সংক্রামক। বুধবার, উত্তর আয়ারল্যান্ডের স্বাস্থ্য বিভাগ কোভিড -১৯ এর নতুন রূপের জন্য এই অঞ্চলে একটি পজিটিভ পরীক্ষার বিষয়ে নিশ্চিত করেছে, যা গ্রেট ব্রিটেনে প্রথম সনাক্ত হয়েছিল।

হ‍্যানকক আরো বলেন: “আমরা জানি যে ত্রি-স্তরযুক্ত সিস্টেমটি কভিডের পুরানো রূপ নিয়ন্ত্রণ করতে কাজ করেছিল এবং এখন দেশের বিশাল অংশে, বিশেষত উত্তর ইংল্যান্ডে কাজ করছে। তবে আমরা এটাও জানি যে নতুন এই রূপ নিয়ন্ত্রণের জন্য টিয়ার ৩ যথেষ্ট নয়। এটি কোনও অনুমান নয়, এটি সত্য এবং আমরা এটি বাস্তবে দেখেছি।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.