গতকাল মঙ্গলবার ইতালিতে নতুন সরকার করোনাভাইরাস মোকাবেলায় নতুন ডিপিসিএম স্বাক্ষর করেছেন, যা ৬ মার্চ থেকে আগামী ৬ই এপ্রিল পর্যন্ত কার্যকর থাকবে।

ইতালি II আলামিন সিকদার ইরাজ, বার্তা কক্ষ:

স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য মাস্ক পরিধান করা ও এক মিটার দূরত্ব রেখে চলাফেরা সমগ্র ইতালি জুড়ে পালন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নতুন জারিকৃত অধ্যাদেশ অনুযায়ী কারফিউ জারি থাকবে রাত দশটা থেকে ভোর পাঁচটা পর্যন্ত।

যদি কোন অঞ্চলে ১লাখ মানুষের মধ্যে ৫০ জন এর নিচে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়, তবে তাকে সাদা অঞ্চল হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

নতুন ডিপিসিএম এ আরও যা যা নিয়মাবলী রয়েছে:

স্কুল:
এই অধ্যাদেশে স্কুল-কলেজের জন্য নতুন আইন জারি করা হয়েছে। যে এলাকায় বা অঞ্চলে এক লাখ মানুষের মধ্যে আড়াই শ’ মানুষ আক্রান্ত হবে সেই অঞ্চলে স্কুল-কলেজ বাধ্যতামূলক বন্ধ থাকবে। রেড জোনে সমস্ত স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকবে।

চলাচল:
কাজের জন্য এবং স্বাস্থ্যের কারণে ও জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বিভিন্ন অঞ্চল বা বিভিন্ন স্বায়ত্তশাসিত  প্রদেশগুলোতে চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে।তবে নিজের বাড়িতে ফেরার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

শুধুমাত্র কমলা এবং লাল অঞ্চলগুলোতে নিজস্ব এলাকা ছেড়ে অন্য এলাকায় যাওয়া বা বাইরে যাওয়া নিষিদ্ধ। তবে যারা কমলা অঞ্চলে থাকবেন তাদের জন্য এক পৌরসভা হতে অন্য পৌরসভা যাওয়া নিষিদ্ধ। যারা রেড জোনে থাকবেন তাদের জন্য ভ্রমণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

বার ও রেষ্টুরেন্ট:
নতুন ডিপিসিএম অনুযায়ী  পুরো ইতালিতে সরবরাহকারী “ওয়াইন শপ বা পানীয়ের খুচরা বিক্রয় কেন্দ্রগুলি রাত ১০ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। তবে বসে খাওয়া নিষিদ্ধ। শুধুমাত্র খাবার নিয়ে যেতে পারবে ও ক্রয় করতে পারবে।

হলুদ অঞ্চলে “বার, পাব, রেস্তোঁরা, আইসক্রিম পার্লার, প্যাস্ট্রি শপগুলি সকাল ৫ টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা রাখার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। তবে সেখানে এক টেবিলে চার জন বসতে পারবে যদি তারা সবাই একই পরিবারে বা একসাথে বসবাস করে।

সন্ধ্যা 6 টার পর রেস্টুরেন্ট বার পাব আইসক্রিম পার্লার সবগুলোতে বসে খাওয়া নিষিদ্ধ এবং উন্মুক্ত স্থানে যেখানে জনসাধারণ চলাফেরা করে সেখানে বসে পানীয় ও খাবার খাওয়া নিষিদ্ধ। তবে রাত দশটা পর্যন্ত হোম ডেলিভারি অনুমোদন রয়েছে। শুধুমাত্র কমলা ও লাল অঞ্চলে বার এবং রেস্টুরেন্ট বন্ধ থাকবে।

ক্রিয়াকলাপ:
হলুদ জোন এবং কমলা জোনে দোকানগুলি খোলা থাকবে  তবে ছুটির দিন এবং প্রাক-ছুটির দিনগুলিতে, ফার্মাসি, প্যারাফরমেসি, স্বাস্থ্যকেন্দ্র, লন্ড্রি এবং ড্রাই ক্লিনার ব্যতীত মার্কেট এবং শপিং সেন্টারগুলিতে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, শপিং গ্যালারী, শপিং পার্ক এবং অন্যান্য অনুরূপ কাঠামো বন্ধ থাকবে।

খাদ্যসামগ্রী বিক্রয়ের পয়েন্ট, কৃষি ও উদ্যানজাতীয় পণ্য, তামাকপন্থী, নিউজেজেন্টস এবং বইয়ের দোকানসহ। রেড জোনে পোশাক, পাদুকা এবং গহনার দোকান বন্ধ থাকবে।  কেবল খাবার, কৃষি ও উদ্যানজাতীয় পণ্য বিক্রয় ব্যতীত বাজারগুলি বন্ধ থাকবে।”  রেড জোনে সেলুন এবং চুল কাটার জন্য এজাতীয় দোকানগুলো বন্ধ থাকবে।

মেলামেশা:
যারা হলুদ অঞ্চলে বাস করেন তারা ৫ থেকে ২২ টি বন্ধু এবং আত্মীয়দের বাড়িতে কেবলমাত্র একবারেই সেখানে থাকতে পারবেন, সেখানে ইতিমধ্যে বসবাসরতদের চেয়ে আরও দু’জন লোকের সীমার মধ্যে থাকতে পারবে।

তাদের সাথে ১৪ বছরের কম বয়সী বাচ্চা নিয়ে আসা, প্রতিবন্ধী বা স্ব-স্ব পর্যাপ্ত লোকেরা বাস করছেন বা আবাসনের অঞ্চলে রয়েছেন। 

যারা কমলা অঞ্চলে থাকেন তারা কেবল নিজের আবাসিক পৌরসভায় থাকতে হবে এবং ১৪বছরের কম বয়সী বাচ্চাদের সাথে আত্মীয় এবং বন্ধুদের সাথে দেখা করতে পারবেন। 

রেড জোনে আত্মীয়স্বজন এবং বন্ধুদের সাথে দেখা করা ও মেলামেশা নিষিদ্ধ।  “কাজের প্রয়োজন বা প্রয়োজনীয়তা এবং  জরুরী পরিস্থিতি ব্যতীত ও সহবাসী ব্যতীত অন্য কাউকে আমন্ত্রণ না জানানোর জন্য দৃঢ় ভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

ছুটির দিনে নিজের বাসায় ফেরার ক্ষেত্রে :
যদি তারা হলুদ এবং কমলা অঞ্চলে থাকে তারা  বাড়িতে যেতে পারবেন।  তবে সেই বাড়ীতে যদি অন্য কেউ বসবাস না করে কেবলমাত্র তিনি বসবাস করেন তাহলে। এছাড়া ভাড়াবাসা ও কেনা বাসায় উঠতে পারবেন তবে সেটা প্রমাণ করতে হবে ১৪ই জানুয়ারি ২০২১ এর পূর্বে ভাড়া নেওয়া হয়েছে বা কেনা হয়েছে।

তবে বন্ধুবান্ধব পরিজনের সাথে নতুন বাসায় উঠতে পারবেন না।যারা রেড জোনে থাকবেন তাদের ভাড়া বাসা বা নতুন বাসা এছাড়া নিজের বাসায় যাওয়া নিষিদ্ধ। এছাড়া কমলা জোনে বসবাসকারীদের জন্য নতুন বাসা বা ভাড়াবাসা এবং অন্য অঞ্চল থেকে আগতদের প্রবেশের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

খেলাধুলো ও ব্যায়ামাগার:
জিম, সুইমিং পুল, সুইমিং সেন্টার, সুস্থতা কেন্দ্র, স্পা এর কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে।  অন্যদিকে, “সরকারী এবং বেসরকারী ক্রীড়া কেন্দ্র এবং ক্লাবগুলিতে সাধারণত  বাইরে চালিত মৌলিক ক্রীড়া কার্যক্রম এবং শারীরিক ক্রিয়াকলাপ অনুমোদিত দেওয়া হয়েছে।

তবে নিরাপদ দূরত্ব ও নিয়ম মেনে এবং কোন ধরনের সমাবেশ বা জনসমাগম করতে পারবে না। কমলা জনে ক্রিয়া কার্যক্রমও মোটর গাড়ি প্রতিযোগিতা অনুমোদন দেয়া হয়েছে।রেড জোনে থাকা সমস্ত প্রকার খেলাধুলা ব্যায়ামাগার ও ক্রিয়া প্রতিযোগিতা বন্ধ থাকবে।

সিনেমা ও থিয়েটার:
হলুদ জোনে ২২ শে মার্চ, ২০২১ থেকে শুরু হয়ে নাটক হল, কনসার্ট হল, সিনেমা, লাইভ-ক্লাব এবং এমনকি অন্যান্য জায়গাগুলিতে এমনকি বাইরেও শোগুলি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত, পূর্ব-নির্ধারিত এবং নিরাপদ দূরত্বে রেখে আসন ব্যবস্থা পরিচালিত হয় এমন পরিদর্শন কেন্দ্রগুলোতে শর্ত মেনে খোলা রাখতে পারবে।

তবে ১ মিটার দূরত্ব বজায় রাখাতে হবে। নতুন নিয়ম অনুসারে, হলগুলোতে ধারণক্ষমতার শতকরা ২৫শতাংশের বেশি মানুষের জনসমাগম হতে পারবে না এছাড়া উন্মুক্ত বাহিরের হলগুলোতে সর্বোচ্চ এবং ইনডোর হলগুলোতে সর্বোচ্চ ২০০মানুষের সমাগম নিষিদ্ধ। 

যাদুঘর ও প্রত্নতাত্ত্বিক প্রদর্শন কেন্দ্র:
হলুদ জোন এ “যাদুঘর এবং অন্যান্য সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান এবং স্থানগুলি জনসাধারণের ছুটির দিন ব্যতীত সোমবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। তবে পরিদর্শনের ক্ষেত্রে দর্শকদের কমপক্ষে 1 মিটার দূরত্ব বজায় রেখে পরিদর্শন করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এছাড়া প্রদর্শনের কমপক্ষে এক দিন পূর্বে অনলাইন বা টেলিফোনে বুকিং দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রদর্শনী কেন্দ্রের ব্যবস্থাপনায় নিয়োজিত কর্মীদের নিরাপদ দূরত্ব ও অন্যান্য নিয়মাবলী দর্শকরা যেন পালন করে সেই দিকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.