মোহাম্মদ আল আমীন, রোম, ইতালী:
করোনা ভাইরাসের আগ্রাসনে বিপর্যস্ত অর্থনীতি বিশ্বব্যাপী সার্বিক ও মৌলিক অবকাঠামোর পাশাপাশি নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে ব্যাক্তিগত এবং পারিবারিক জীবনেও।

লোকচক্ষুর আড়ালে ঘটে যাচ্ছে অসহায় নিরুপায় ও দুর্বলের প্রতি নানান প্রক্রিয়ায় নির্যাতন। আবার কেউ কেউ বেছে নিয়েছেন আত্মহত্যার মতো হৃদয়বিদারক এবং মর্মান্তিক অনন্তযাত্রা।

এমন নাজুক পরিস্থিতিতে ইতালীয় সরকার এবং প্রশাসন কি ধরনের সামাজিক ও রাজনৈতিক পদক্ষেপ গ্রহন করতে পারে সে বিষয়ে গত ৩০ নভেম্বর ’২০ সোমবার বিকেল ৩.৩০ মিনিটে ইতালীয় প্রজাতন্ত্রের জাতীয় সংসদের উচ্চকক্ষ সিনেটে এক আলোচনা সভা ও সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

মাননীয় সিনেটর মার্কো সিকলারি সিনেটের পক্ষ থেকে পিয়াচ্ছা মাদামায় অবস্থিত সিনেট ভবন, পালাচ্ছো মাদামার; নাসিরিয়ার শহীদ মিলনায়তনে অপর মাননীয়া সিনেটর পাওলা বিনেত্তির সাথে ইতালীর বিভিন্ন স্তরের বেশ কিছু গণ্যমান্য বুদ্ধিজীবি ও পেশাজীবিদের সাথে মত বিনিময় করেন।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, রাই টেলিভিশনের মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব মেতিস দে মেও, সিনেটের জনসংযোগ উপদেষ্টা ডক্টর ফিলিপ্পো মাররা, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ইতালী শাখার বিশিষ্ট গবেষক ও কর্মকর্তা ষ্টেফানো কালিপ্পো, সান ইম্প্রেসার ভাইস প্রেসিডেন্ট ডক্টর লুইজি কারাজ্জেসি, বিশিষ্ট মনোবিজ্ঞানী ফেদেরিকা রিচ্চি, এ্যাডভোকেট লাউরা ভাসেল্লি, অপ্রাপ্তবয়স্ক বিষয়ক আদালতের প্রথম সেশন দ্বিতীয় বেঞ্চের ম্যাজিষ্ট্রেট ডক্টর দানিয়ালো বিয়াঙ্কিনি, শিশু অধিকার সংস্থা ইতালীর সভাপতি আন্তোনিও মারঝিয়ালে , ইমিগ্রেশন এবং আয়কর বিষয়ক আইনজীবি ডক্টর মুক্তার হোসেন ।

ডক্টর মুক্তার হোসেন , বাংলাদেশী প্রতিনিধিকে সভায় আমন্ত্রন জানানোর জন‍্য সিনেটকে ধন্যবাদ জানান। তিনি আরো বলেন , নাগরিকদের যেকোন সমস্যা সামাধানে বাংলাদেশ কমিউনিটি প্রশাসনকে যেকোন সহযোগীতা করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। আজ সিনেটে বাংলাদেশীদের অংশগ্রহন বাংলাদেশ কমিউনিটির জন‍্য একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে।

উল্লেখ্য এই প্রথমবারের মতো ইতালীতে বসবাসরত প্রবাসী কোন বাংলাদেশী সিনেটের পক্ষ থেকে কোন আলোচনা সভায় অংশগ্রহন করার জন্য আমন্ত্রিত হন।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.