মহান অমর ২১শে ফেব্রুয়ারি, ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের একটি প্রতিনিধি দল, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার অভিমুখে পদযাত্রা ও ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করেন।

বাংলাদেশ II সুকান্ত দেব, নিজস্ব প্রতিনিধি :

জাতীয় হিন্দু মহাজোট, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সম্মানিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক যথাক্রমে ড. সোনালী দাস-ডা.এম কে রায়-এর নেতৃত্বে এই পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়।

কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন সিনিয়র সহ-সভাপতি বিশ্বম্ভর কুমার নাথ, সহ-সভাপতি মিঠু রঞ্জন দেব, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শ্রীমতি প্রতিভা রানী দে।

তাছাড়া সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ও নবগ্রাম জনকল্যাণ সেবাশ্রম ট্রাস্ট এর পরিচালক শ্রীমান রবিন হালদার, সহ মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক শ্রীমান মৃণাল মজুমদার, সদস্য বালা, যুব হিন্দু মহাজোটের দপ্তর সম্পাদক শ্রীমান জীবন রায়।

কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির নেতৃবৃন্দ সাক্ষাৎকারে বলেন, ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আমরা আমাদের স্বাধীনতার বীজ বপন করেছিলাম এবং ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে কুখ্যাত স্বৈরশাসক পাকিস্তানকে পরাজিত করে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল।

প্রথম ভাষা আন্দোলনের আওয়াজ তুলেছিলেন, প্রয়াত ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ১৯৪৮ সালে, তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের অ্যাসেম্বলিতে, বলেছিলেন পূর্ব পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের মাতৃভাষা হবে বাংলা।

সেখান থেকেই পরবর্তীতে বাংলা ভাষার আন্দোলনের সূত্রপাত। পরবর্তীতে ১৯৫২ সালের তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ তাদের মাতৃভাষা বাংলা ছিনিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছিল।

বাংলা ভাষা এখন শুধুমাত্র বাংলাদেশের জনগণের মাতৃভাষা নয়, পরবর্তীতে জাতিসংঘের স্বীকৃতি প্রাপ্ত যে কয়টি ভাষা আছে তার মধ্যে বাংলা ভাষা একটি অন্যতম ভাষা হিসেবে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত হয়।

১৯৫২সালের ভাষা আন্দোলনে সালাম, জব্বার ,রফিক সহ আরো অগণিত লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে বাংলা ভাষা প্রতিষ্ঠিত হয়।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.