মায়াবতী,
তোমায় নিয়ে যখন লিখছি, তুমি তখন অনেক দূরে;
আমার হৃদয় থেকে হাজার আলোকবর্ষ দূরে কিংবা তারও বেশি হয়তো!

আচ্ছা,
টিনের চালার নিচে শ্রাবণে বৃষ্টির পড়ার শব্দে আমাদের যখন ঘোর ভাঙতো, মনে আছে?
ভুল বলেছি, বরং নতুন একটি ঘোরে আমাদের স্বপ্নগুলো জেঁগে উঠতো।
একদিন সমুদ্র দেখাবো বলে তোমাকে কথা দিয়েছিলাম।
যাবার বেলায়, চলতি পথে;
সারাটা রাত ট্রেনে জানালার গ্রীল ধরে তাকিয়ে থাকলাম বাহিরে;
আমরা দু’জনেই থাকিয়ে রইলাম অজানা ঘোরে
চোখ আটকে গেলো আকাশে আমাদের সঙ্গী হওয়া চাঁদের দিকে,
চাঁদটা বড্ড বেহায়া ছিলো, সারাটা রাত আমাদের সঙ্গী হয়ে রইলো।
কে কার বারণ শুনে বলো? চাঁদটা খুব বেহায়া ছিলো সে দিন।
চাঁদকে বেহায়া বলাতে রাগ করলে বুঝি?
না’ বলে উপায় কি বলো, সময়টা যে-
আমার আর তোমার হওয়ার কথা ছিলো; অথচ!
তুমি তো তাই চেয়েছিলে? বুঝেছি যখন, তখন;
থাক, এসব না বলাই ভালো বরং অন্য সব কথার মতো এও হারিয়ে যাক।

সমুদ্র আমাদের দেখা হয়েছিলো সত্য কিন্তু চাঁদের কথা ভুলতে পারলে না আর, চাঁদও যে তাই!
একদিন তুমিও হয়ে গেলে চাঁদের মতো, একান্ত তোমাকে হারিয়ে ফেললাম, তুমি চলে গেলে….

যে দিন তুমি চলে গেলে, চাঁদের কাছে।
বিশ্বাস করো, আমি তোমাকে আজও মনে রেখেছি,
সেই দিনের পর থেকে এখন পর্যন্ত।

মায়াবতী,
রাত হলেই আকাশের নিচে বসে থাকি,
বেহায়া চাঁদ আমায় দেখে, হাসে আর হাসে, উপহাস করে,
এসব নিশ্চয়ই তুমি জানো না। জানলে চাঁদকে নিশ্চয়ই বকে দিতে?

বাদ দাও,
আচ্ছা তুমি কেমন আছো? নিশ্চয়ই অনেক ভালো।
খুব হিংসে হয়, খুব জ্বলে আমার।
আমি খুনে হয়ে উঠি।
একদিন সত্যি সত্যি বেহায়া চাদঁটাকে খুন করবো,
দেখে নিও সত্যি সত্যি আমি খুন করবো…..

Spread the love

১ Comment

  1. চমৎকার কবিতা

Leave a Reply

Your email address will not be published.