বার্তাকক্ষ:

আজ সারাদেশে ৫৫টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। চতুর্থ পর্যায়ে পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছেন নির্বাচন কমিশন।

ইসি সচিব হুমায়ুন কবির খন্দকার বলেছেন “চট্টগ্রামের পটিয়ায় নির্বাচনী সংঘর্ষে প্রাণহানির ঘটনার জন্য তিনি দুই প্রার্থীকে দায়ী করেন। এছাড়া তিনি আরো দাবি করেন যে খুনের ঘটনা হওয়ার পরও সেখানে ভোটের পরিবেশ ছিল।”

আজ ভোটগ্রহণ শেষে আগারগাঁয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।এছাড়া তিনি দুই প্রার্থী  মধ্যে সংঘর্ষে একজন মারা যাওয়ায় তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।তিনি আরো বলেন দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে মারামারি হয়েছে ভোটকেন্দ্রের বাহিরে এতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণে কোনো প্রভাব ফেলেনি। সেখানে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সচিব আরো বলেন”এটি হলো প্রার্থীদের মধ্যে বিচ্ছিন্ন ঘটনা। হঠাৎ করে হয়ে গেছে একজন মারা গেছে ।যারা ভোট দেওয়ার তারা ভোটকেন্দ্রে যাবেন। যে জায়গায় মারামারি হয়েছে সেখানে যাবেন না”

হুমায়ুন কবীর আর‌ও বলেন, যে দুই প্রার্থী মারামারি করেছেন, খুনের দায় তাঁদের। কারণ, তাঁরা নিজেরা মারামারি করেছেন, খুন হয়েছেন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, প্রিসাইডিং কর্মকর্তা সবাই জানিয়েছেন, সেখানে ভোট দেওয়ার মতো পরিবেশ ছিল।

রিটার্নিং কর্মকর্তার প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেখানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের দায়িত্ব পালন করেছে। তিনি বলেন, ভোটকেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ছিলেন। তাঁরা বাইরে গিয়ে ঝগড়া করেছেন, সেখানে একজন নিহত হয়েছেন।

“সেখানে আসলে ওই মুহূর্তে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হস্তক্ষেপ করার সুযোগ ছিল না।”পুরো দেশেই শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে। নরসিংদীতে চারটি কেন্দ্রে, নোয়াখালীর সোনামুড়ির একটি কেন্দ্রে, শরীয়তপুরের ডামুড্যায় দুটি—মোট সাতটি কেন্দ্রে ভোট বন্ধ করা হয়েছে। বাকি ভোটকেন্দ্রগুলোতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তাদের প্রতিবেদন ও গণমাধ্যমে পরিস্থিতি দেখে মনে হয়েছে ভালো ভোট হয়েছে।”

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.