চট্টগ্রাম লোহাগাড়ার চুনতি ইউনিয়নে প্রায় তিন লক্ষাধিক টাকার ( ১-১৫) বছর বয়সী বাচ্চাদের মাঝে ঈদ উপহার বিলি করা হলো গতকাল ১১ তারিখ থেকে ১২ তারিখ পর্যন্ত।

বাংলাদেশ II লামিয়া ফেরদৌস, চট্টগ্রাম:

মূলত চুনতি ইউনিয়নের ছয় নং ওয়ার্ড থেকেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়, এতো বড় উদ্যোগ এতো বড় দান, এতো সুন্দর ভিন্ন ধর্মী আয়োজনের পিছনে কাপড় সহায়তায় ছিলেন চুনতি পৃথিবী জুড়ে বিখ্যাত হবার মূল পরিবার!

প্রচারবিমুখতার কারণে নাম উল্লেখ করতে সীমাবদ্ধতা রয়েছে। এই উপহারের তালিকায় নিম্নমধ্যবিত্ত থেকে শুরু করে মধ্যবিত্তরা ছিলেন। এটি ব্যতিক্রম ধর্মী একটা বিষয়। ঈদ উপহার মধ্যবিত্ত নিম্ন মধ্যবিত্তদের মাঝে বিত্তবান মানুষেরা যাকাত ফান্ড থেকে পাঠিয়ে থাকেন।

তবে বাচ্চাদের মাঝে এভাবে ঈদ আনন্দ ছড়িয়ে দিতে খুব কম দেখা যায়। এখানে এমন অনেক বাচ্চা এসেছে যাঁদের গায়ে একটা কাপড় ও ছিলোনা।দেখা যায় অগুনতি বাচ্ছাদের ঈদের

দুদিন আগেও জামা কিনতে পারেনি। প্রত্যক্ষদর্শী রিপোর্ট। তাই এই জামা গুলো পেয়ে বাচ্চাদের আনন্দ যেন ঈদের দিন সকালের আনন্দকে হার মানিয়ে দেয়।

যতোটা সম্ভব সবকিছুই যাঁদের অবশ্য দরকার তাঁদের কাছেই পৌঁছানোর চেষ্টা করেছে চুনতির কয়েকজন সেচ্ছাসেবী শিক্ষার্থী টিম।

সমস্ত দায়িত্ব মাথা পেতে নিয়ে অক্লান্ত পরিশ্রম করে গিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও লেখক, টিম লিডার লামিয়া ফেরদৌসী। সাথে ছিলেন, অবসরপ্রাপ্ত আর্মি নেজাম উদ্দিন। সহ পোর্ট সিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ রুবেল, এগ্রিকালচার ইন্সটিটিউট শিক্ষার্থী মোহাম্মদ ফয়সাল, সাকিব, এবং মোহাম্মদ নাঈম।

হাজার খানেক বাচ্চাদের হাতে রাত জেগে সাইজ মতো উপহার তুলে দেওয়ার কাজ আমাদের টিমের জন্য চ্যালেন্জিং ছিলো বলে উল্লেখ করেন লামিয়া ফেরদৌসী।

সাইজ মিলিয়ে কাপড় বিতরণ,বিভিন্ন জায়গায় পাঠানো সব মিলিয়ে কাজ করতে গিয়ে এক প্রকার হিমশিম খেতে হয়েছে সেচ্ছাসেবীদের।

অক্লান্তভাবে কাজ করেও সেচ্ছাসেবীদের মুখে হাসি ছিলো, তাঁরা বলেন পরিশ্রমের বিনিময়ে এই হাসি টুকু দেখতে পারার সুখ আমাদের আজীবনের প্রাপ্তি। তাদের চাওয়া,

আমরা নিজেদের দিতে না পারার সামর্থ না থাকলেও মাধ্যম হিসেবে হলেও কিছু পাওয়া হোক অসচ্ছল মানুষের।

সাথে দুই রমজানে আগুনে পুড়ে যাওয়া চুনতির গুচ্ছ গ্রামের দশ পরিবার সহ আশেপাশের পঞ্চাশটি পরিবারে বাচ্ছাদের কাপড় বিলি করা হয়।

দাতা এবং বিতরণে অংশ নেওয়া সবার জন্য দোয়া কামনা করা যাচ্ছে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.