ইউরোপ II সৈয়দা হাসিনা দিলরুবা, সম্পাদনা ডেস্ক:
ফাইজার-বায়োএনটেকের করোনা ভাইরাস ভ্যাকসিন ফাইজার (pfizer) এর প্রথম ডোজ পাওয়ার দু’দিন পরে হঠাৎ করে একজন ৪১ বছর বয়সী নার্স মারা যান। মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ধারণের জন্য একটি ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দুই সন্তানের জননী নার্স সোনিয়া আসেভেদো পর্তুগিজ ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের পেডিয়াট্রিক ওয়ার্ডে কর্মরত ছিলেন। তিনি গত ৩০ ডিসেম্বর ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ গ্রহণ করার পর অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং নববর্ষের দিন হঠাৎ করে মারা যান। মৃত‍্যুর সঠিক কারণ হিসেবে এখনও নিশ্চিত হয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না।

মৃত নার্সের বাবা ‘অ্যাবিলিও আ্যাসেভেদো’ তাঁর মেয়ের মৃত্যুর বিষয়ে আলোকপাত করার জন্য তদন্ত শুরু করার আহবান জানিয়েছেন। “সোনিয়া সুস্থ ছিল, তাঁর কোনও প্যাথলজিক‍্যাল সমস‍্যায় কখনো ভোগে নি। আমি ভ্যাকসিন নেওয়ার পরে তাঁর সাথে কথা বলেছি, সে আমাকে বলেছিলো যে কোনও বিশেষ লক্ষণ অনুভব করতে পারেছে না, তবে কেন এই অচিন্তনীয় ঘটনা ঘটল”- তিনি ‘কররেইও ডে মানহা’ পোর্টালে এসব কথা বলেন। “আমি জানি না কেন এমন হয়েছিল, তবে আমি নির্দিষ্ট উত্তর চাই। আমার মেয়ে কীভাবে মারা গেল তা জানার অধিকার আমার আছে”-বলেন নার্সের বাবা।

সোনিয়া আচেভেদোর কী হয়েছিল তা স্পষ্ট করার জন্য ময়নাতদন্তের ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করা প্রয়োজন। পর্তুগিজের স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে ইতিমধ্যে ঘটনা সম্পর্কে অবহিত করা হয়েছে এবং আগামী কয়েক ঘন্টার মধ্যে একটি অভ্যন্তরীণ তদন্তও শুরু হতে পারে।

এরই মধ্যে, নতুন টিকা দেওয়া নার্সের মৃত্যুর খবর বিশ্বজুড়ে চলছে, নো-ভ্যাক্সের সামাজিক গ্রুপে সবার উপরে এই খবর ছড়িয়ে যাচ্ছে, বৈজ্ঞানিক ভিত্তিতে নিশ্চিতকরণের অভাব সত্ত্বেও তারা টিকাকে ক্ষতিকারক হিসেবে নিন্দা করতে ত‍ৎপর।

এই বিষয়ে, মিলান বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজিস্ট অধ্যাপক ফ্যাব্রিজিও প্রেগ্লিয়াস্কোর সাথে লেগগো যোগাযোগ করেছিলেন। “এ জাতীয় পরিস্থিতি ঘটতে পারে, টিকা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে ভ্যাকসিনের পরের দিনগুলিতে মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে পারে, তবে অবশ্যই এটি তদন্ত করা উচিত। আমি বিশ্বাস করি যে, যখন তদন্ত করা হবে, তখন ঘটনার সাথে কোনও সম্পর্ক স্থাপন করতে সক্ষম হবে। আমরা ময়নাতদন্তের ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছি তবে তিনি অন‍্য কোন কারণেও মারা যেতে পারেন। ফলাফল ছাড়াই আমরা কোন উত্তর দিতে পারি না “- এভাবেই ঘটনাটির ব‍্যাখ‍্যা দিয়েছেন অধ্যাপক প্রেগ্লিয়াসকো বলেন, “আমিও ভ্যাকসিন নিয়েছি এবং ভাল আছি, বাহুতে কেবল দু’দিন ব্যাথা ছিল কিন্তু কখনোই কাজ বন্ধ করি নি। ভ্যাকসিনেশন প্রচারণা ভাল চলছে, কীভাবে প্রক্রিয়াটিকে তেল দেওয়া হয়েছে তা আমাদের আগামী দিনগুলোতে মূল্যায়ন করতে হবে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.