জলরঙা শাড়িতে জড়িয়ে নগ্ন নূপুর পায়ে,
আমি ছুটছি, উর্ধ্বশ্বাসে ছুটছি…
এলোচুলে বৃষ্টিজল আমার ঠোঁট-চিবুক ছুঁয়ে
ভিজিয়ে দিচ্ছে সারা শরীর…।
তুমিও ছুটছো তোমার হাতের প্রথম বৃষ্টিফোঁটা
আমায় ছোঁয়াবে বলে….!

সবুজ ঘাসে জমে যাওয়া কাদা জলে,
আমার পায়ের ছুটোছুটিই মেখে গেছে সব।
তুমি হাঁপিয়ে উঠেছ,আমায় ডাকছো-
পিছন ফিরে দেখি তুমি মলিন মুখে,
হাঁটু গেঁড়ে বসে পড়েছ।

তবু শুনছিনা তোমার ডাক, আমি শুনবোওনা।
আমি দেখতে চাই বৃষ্টির প্রথম ফোঁটা ছোঁয়াবে বলে,
কতবার পরে গিয়েও ছুটতে থাকো আমার পিছু।
জানি বৃথা সব- বৃষ্টির প্রথম ফোঁটা সেই কখন
হাজারো ফোঁটায় মিশে একাকার হয়ে গেছে।
আমি তবুও তোমার ছুটতে থাকা দেখব।

বৃষ্টির ছোঁয়া নয়- আমি যে,
তোমার ভালোবাসার গভীরতার ছোঁয়া পেতে চাই।
মেঘের গুড়ুম গুড়ুম তবলা ধ্বনিতে জড়িয়ে ধরেছিলাম অজান্তেই-
তুমিই জিতেছিলে সেদিন..!
বলেছিলে- বড্ড ছেলেমানুষ আমি।
জানো শ্রাবণ, চারদিকে জলের ছড়াছড়ি;
জলরঙা শাড়িতে জড়িয়ে আজ আবার বসেছি,
সেই শান বাঁধানো ঘাটে নুয়ে পরা কদমতলায় দীঘিটার পাড়ে…..।

মুখোমুখি বসে দীঘি জলের আলতো স্পর্শে
ছুঁয়েছিলাম তোমায়………!
মনে পড়ে..?
খোঁপায় কদমফুল গুঁজে দাওনি বলে
সে কি অভিমান আমার….
প্রথম বৃষ্টি ফোঁটা ছোঁয়াবার সেই ছুটোছুটি?
একা বসে ভাবছি আর হাসছি…!
দীঘির হাঁসগুলো সেদিন ভালোবাসা শিখেছিল
তোমায়-আমায় দেখে…।

সেই বর্ষায় আকাশ কেঁদেছিল খুব
কষ্টের মেঘ ঝরেছিল অবিরত বৃষ্টি হয়ে।
আকাশের কান্নায় নেচে নেচে ভিজেছিলাম দুজন।
আজ আমি অভিশপ্ত….
নয় বছর ধরে আমার আকাশে মেঘ জমেছে,
আকাশের অভিশাপে আমার চোখে জল ঝরে আজও অবিরত……..।

তুমি ভালো আছতো শ্রাবণ..?
শুনেছি বউ তোমার বড্ড সুন্দরী।
ভালোও বাসে খুব।
তুমি ভালো থেকো এভাবেই অনাদিকাল।
তোমার আকাশের সব মেঘ আমার আকাশে জমুক।
আমি সেই মেঘের বৃষ্টি হয়ে ধুয়ে দিব তোমার সব কষ্ট…..!

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.