করোনা সংক্রমণের মারাত্মক উর্ধ্বগতির কারণে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট মাক্রোঁ কমপক্ষে এক মাসের কড়া লকডাউন ঘোষণা করেছেন৷ এরই সাথে টিকাদান কর্মসূচির গতি বাড়িয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার আশা করছেন তিনি৷

ইউরোপ II আর্লি-স্টার অনলাইন ডেস্ক:

টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ বর্তমান করোনা পরিস্থিতির উল্লেখ করে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করলেন৷ মার্চের শুরু থেকে দেশের কিছু অংশে বিচ্ছিন্নভাবে যে সকল কডা বিধিনিষেধ চালু ছিল, সেগুলিকে বর্তমানে সারাদেশে প্রয়োগের সিদ্ধান্ত নিলেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট৷

মাক্রোঁ বলেন, হয়তো মহামারির প্রতিটি ক্ষেত্রে ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ তবে সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে প্রতিবার ভুল শুধরেও নেওয়া হয়েছে৷ আমরা যদি এখনই পদক্ষেপ না নিই তাহলে আমরা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলব।

উল্লেখ্য, দেশের বিপর্যস্ত অর্থনীতির স্বার্থে মাক্রোঁ এতদিন তৃতীয় লকডাউনে যেতে দ্বিধাবোধ করছিলেন৷ অবশেষে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সিদ্ধান্ত নিতেই হলো। আগামী শনিবার থেকে এই লকডাউন কার্যকর হবে।

নতুন বিধিনিষেধ অনুযায়ী নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান ছাড়া বাকি সব বিপণী বন্ধ রাখা হবে৷ সন্ধ্যা সাতটা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কারফিউ চালু থাকবে৷ তবে ইস্টার হলিডে উপলক্ষে ছুটি দেওয়া হবে, যাতে সবাই তাদের পছন্দমতো স্থানে গিয়ে লকডাউন কাটাতে পারেন।

কেউ নিজের বাসা থেকে ১০ কিলোমিটারের বেশি দূরে যেতে পারবেন না, অর্থাৎ দেশের মধ্যে মানুষের যাতায়াত কার্যত বন্ধ রাখা হচ্ছে৷ সারা দেশে তিন সপ্তাহের জন্য স্কুল পুরোপুরি বন্ধ থাকবে৷

করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যায় বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে ফ্রান্স। দেশটিতে এ পর্যন্ত ৪৬ লাখ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৯৫ হাজার ৪৯৫ জন। আক্রান্তের সংখ্যায় বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে দেশটি।

দেশটিতে প্রতি এক লাখ নাগরিকের মধ‍্যে সাপ্তাহিক গড় সংক্রমণের হার প্রায় ৩৭৫৷ দিনে ৪০,০০০-এর বেশি নাগরিক করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন৷ ফলে দেশের অনেক হাসপাতাল আর রোগী নিতে পারছে না।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.