বাংলাদেশী পাসপোর্টের অধিকারী হয়েও বিশ্বের ১১৫ টি দেশ ভ্রমণ করেছেন কাজী আসমা আজমেরী। তিনিই বাংলাদেশের প্রথম নাগরিক, যিনি বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে এতোগুলো দেশ ভ্রমণ করেছেন। তিনি এক জেদ থেকে এমন বিশ্ব ভ্রমণের চেষ্টায় নামেন।

আসমা আজমেরী ২০০৯ খ্রিস্টাব্দে “মেয়েরা বিশ্বভ্রমণ করতে পারে না’’ এমন বিদ্রুপ শুনে এমন জেদ করেন, যা বলেছিলেন তার এক বন্ধুর মা। সেই থেকে তিনি নিজের গহনা বিক্রি করে বিশ্বভ্রমণে বেরিয়ে পড়েন। সেই থেকে শুরু হয় তার এই বিশ্ব ভ্রমণ। এরপর আর পেছন তাকাতে হয়নি তাকে।

২০১০ সালে প্রথমে তাকে ২৩ ঘণ্টা ভিয়েতনাম ইমিগ্রেশন জেলে কাটাতে হয়েছিলো। তখন তার কাছে রিটার্ন টিকিট না থাকায় এবং বাংলাদেশি পাসপোর্ট হওয়ার কারণে তাকে এমন পরিস্থিতিতে পড়তে হয়। তারপর একই বছর সাইপ্রাসেও তাকে ২৭ ঘণ্টা ইমিগ্রেশন জেলে কাটাতে হয় শুধু বাংলাদেশি পাসপোর্টের কারণে। সে সময় তার মনে ক্ষোভ জন্ম নেয়। তা থেকেই তিনি বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে ভ্রমণ করবেন বলে প্রতিজ্ঞা করেন। তিনি সবাইকে দেখিয়ে দিতে চান, বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়েও বিশ্বভ্রমণ করা সম্ভব।……..

তারপর এসব কারণেই ২০১০ সাল থেকে ভুয়া স্টুডেন্ট ও ট্যুরিস্টদের নিরুৎসাহিত করে আসছেন। ২০১২ সাল থেকে নিউজিল্যান্ডে বসবাস করলেও বাংলাদেশি পাসপোর্ট সংরক্ষন করেন এই ভ্রমণ পিপাসু নারী। ২০১৪ সালে ফুটবল বিশ্বকাপে ব্রাজিলে ৫০টি দেশ ভ্রমণ উদযাপনের সময় ভয়েস অব আমেরিকার চোখে পড়েন কিন্তু তিনি মিডিয়াকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করেন।

তারপরও বিবিসি বিংলাসহ বিদেশি পত্র-পত্রিকা থেকে শুরু করে টিভি, রেডিও সবখানেই বাংলাদেশকে আলোকিত করে এসেছেন। তিনি ২০১৮ সাল থেকে বিশ্বভ্রমণের পাশাপাশি ছাত্র-ছাত্রীদের ভ্রমণের গল্প বলেও অনুপ্রাণিত করে আসছেন। তাদের ভেতরে স্বপ্ন জাগিয়ে আত্মবিশ্বাসী হতে সাহায‍্য করেন।

চলতি বছর ‘মুজিববর্ষে’ ১ লাখ শিক্ষার্থীকে ভ্রমণের গল্পের মাধ্যমে অনুপ্রাণিত করবেন। পাশাপাশি কাজ করছেন ৭-১৯ বছরের ছেলেমেয়েদের প্রগতিশীল চিন্তা-ভাবনার বিকাশ ও এক্সট্রা কারিকুলামে উৎসাহিত করার জন্য এবং বাংলাদেশের দিনমজুর, রিকশা চালক, গৃহকর্মী ও নিরাপত্তাকর্মীদের অধিকার নিয়ে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টাও করে যাচ্ছেন তিনি। ছোটবেলা থেকেই সন্ধানী ডোনার ক্লাব, রোটারি ইন্টারন্যাশনালের সাথে জড়িত আছেন।

তিনি শুধু নিজেই ভ্রমণ করাতেই থামতে চান না, বাংলাদেশের সবুজ পাসপোর্টধারীদের বিশ্বভ্রমণের পথ সুগম করারও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

ছবি ও সূত্র: জাগো নিউজ টুয়েন্টিফোর

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.