বাংলাদেশের মুক্তির সংগ্রামের অনুপ্রেরণা হচ্ছে ভাষা আন্দোলন। সেই ভাষা আন্দোলনের সফলতা থেকে বাঙালি পেয়েছে মুক্তির সংগ্রামের উজ্জীবনী শক্তি ও সাহস। ভাষা আন্দোলনের প্রসঙ্গ আসলেই সর্বপ্রথম যার মুখটি বাঙালির সামনে ভেসে উঠে, তিনি হলেন ভাষা সৈনিক আব্দুল মতিন। ভাষা আন্দোলনের পর থেকে তিনি ‘ভাষা মতিন’ নামেই বাঙালির কাছে সর্বাধিক পরিচিত। ভাষা আন্দোলনে তাঁর অবদান চিরস্মরণীয় ও অনস্বীকার্য। তিনি ছিলেন অকুতোভয় একজন সংগ্রামী নেতা। ছাত্র জীবন থেকেই আমৃত্যু সেই সংগ্রামে অবিচল থেকে বলে গেছেন শোষণ-বৈষম্যহীন সমাজের কথা। ভাষা আন্দোলন থেকে যুক্তফ্রন্ট, ফ্রন্টের নির্বাচনী বিজয়। শৃঙ্খল ভাঙার গানে উজ্জীবিত অনেক ছাত্র-যুবার কাছে তখন প্রথাগত শিক্ষার চেয়ে রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়ে শোষণমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠার স্বপ্নই বড় হয়ে দেখা দেয়- আবদুল মতিন ছিলেন তাদেরই একজন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবস্থায় ভাষা আন্দোলনে সম্পৃক্ত হন মতিন। রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হলে তিনি এর আহ্বায়কের দায়িত্ব নেন। ১৯৫২ সালে তুমুল আন্দোলনে তিনি নেতৃত্বের ভূমিকায় ছিলেন। তাদের সেই আন্দোলনের পথ ধরেই বাঙালি পায় মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকার। এই ভাষা আন্দোলনের পথ ধরে কারাগারে নানা বন্ধুর সাহচর্যে নতুন আদর্শে দীক্ষা- সে আদর্শ সমাজবদলের, বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার। এ স্বপ্ন পূরণের লড়াইয়ে জেল-জুলুম নির্যাতন কোনো কিছুতেই বিচ্যুত হননি ভাষা মতিন।

আব্দুল মতিন ১৯২৬ সালের ৩ ডিসেম্বর সিরাজগঞ্জের চৌহালি উপজেলার ধুবালীয়া গ্রামে এক মধ্যবিত্ত কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম আব্দুল জলিল এবং মায়ের নাম আমেনা খাতুন। তিনি ছিলেন তাদের প্রথম সন্তান। জন্মের পর তাঁর ডাক নাম ছিল ‘গেদু’। ১৯৩০ সালে গ্রামের বাড়ি যমুনা নদীর ভাঙনে ভেঙ্গে গেলে আব্দুল জলিল জীবিকার সন্ধানে ভারতের দার্জিলিংয়ে চলে যান। সেখানে জালাপাহারের ক্যান্টনমেন্টে সুপারভাইস স্টাফ হিসেবে একটি চাকরি পেয়ে যান। ১৯৩২ সালে আব্দুল মতিন শিশু শ্রেণিতে দার্জিলিংয়ের বাংলা মিডিয়াম স্কুল মহারাণী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিলেন এবং তখন সেখানেই তাঁর শিক্ষা জীবনের শুরু। ১৯৩৩ সালে আব্দুল মতিনের মাত্র ৮ বছর বয়সে তাঁর মা অ্যাকলেমশিয়া রোগে মারা যান। মহারানী গার্লস স্কুলে ৪র্থ শ্রেণি পাশ করলে এখানে প্রাথমিক স্তরের পড়াশোনার শেষ হয়। এরপর ১৯৩৬ সালে দার্জিলিং গভর্মেন্ট হাই স্কুলে পঞ্চম শ্রেণিতে ভর্তি হন। তিনি ১৯৪৩ সালে এনট্রেন্স (মাধ্যমিক সার্টিফিকেট পরীক্ষা) পরীক্ষায় তৃতীয় বিভাগ নিয়ে উত্তীর্ণ হন। আব্দুল মতিন ১৯৪৩ সালে রাজশাহী গভর্মেন্ট কলেজে ইন্টারমিডিয়েট প্রথম বর্ষে ভর্তি হলেন। দুই বছর পর ১৯৪৫ সালে তিনি এইচ এস সি পরীক্ষায় তৃতীয় বিভাগ নিয়ে উত্তীর্ণ হন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে আব্দুল মতিন বৃটিশ আর্মির কমিশন র‌্যাঙ্কে ভর্তি পরীক্ষা দেন। দৈহিক আকৃতি, উচ্চতা, আত্মবিশ্বাস আর সাহসিকতার বলে তিনি ফোর্ট উইলিয়াম থেকে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে কমিশন পান। এরপর তিনি কলকাতা থেকে ব্যাঙ্গালোর গিয়ে পৌঁছান। কিন্তু ততদিনে যুদ্ধের পরিসমাপ্তি ঘটে। ফলে তিনি একটি সার্টিফিকেট নিয়ে আবার দেশে ফিরে আসেন। দেশে প্রত্যাবর্তনের পর তিনি ১৯৪৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাচেলর অব আর্টসে (পাস কোর্স) ভর্তি হলেন। ফজলুল হক হলে তার সিট হয়। ১৯৪৭ সালে গ্র্যাজুয়েশন কোর্স শেষ করেন এবং পরে মাস্টার্স করেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ থেকে।

মাতৃভাষা মানুষের জন্মগত অধিকার। পৃথিবীর সমস্ত ভাষাভাষী মানুষই নিজের ভাষায় কথা বলবে, এটিই স্বাভাবিক। বাংলা ভাষাভাষী মানুষের ক্ষেত্রে একই কথা প্রযোজ্য। কিন্তু ভাষার ওপর আঘাত অর্থাৎ একটি ভাষাভাষীর মানুষের ওপর অন্য একটি কৃত্রিম ভাষা জোর করে চাপিয়ে দেওয়া পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল ঘটনা। এমনই একটি বিরল ও ঘৃণ্য ঘটনা ঘটে ছিল ১৯৪৮ সালে। অগণতান্ত্রিক এবং অযৌক্তিকভাবে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার দুঃসাহস দেখালেন মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। তিনি ঢাকায় এসে ২৪ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলের কনভোকেশনের ভাষণে ঘোষণা দিলেন উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা করা হবে। কথাটা উচ্চারণের পর পর আব্দুল মতিনের কণ্ঠ থেকেই প্রথম উচ্চকণ্ঠের প্রতিবাদ ‘নো নো’ ধ্বনিত হয়েছিল। সেই সময়ের প্রেক্ষাপটে এটা শুধু সাহসিকতা বলা চলে না, রীতিমতো বলতে হবে একটা দুঃসাহসিক কাজ। আবার ১৯৫২ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি সরকার ঘোষিত ১৪৪ ধারা না ভাঙার পক্ষে ১১-৩ সংখ্যাগরিষ্ঠের সিদ্ধান্ত অমান্য করার পক্ষে অবস্থান গ্রহণকারী ছাত্রদেরও নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এই আবদুল মতিন। পরদিন ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলার ঐতিহাসিক ছাত্র-জনতার সভায় ১৪৪ ধারা ভাঙার সিদ্ধান্তটিই পাস হয়েছিল তাঁর জ্বালাময়ী ভাষণের প্রভাবে। তারপরে ইতিহাস আমাদের সবার জানা আছে। রাজপথে বুকের রক্ত দিয়ে ছাত্র-জনতা মাতৃভাষা বাংলাকে প্রতিষ্ঠা করে। পৃথিবীর বুকে মাতৃভাষার জন্য আন্দোলন করে প্রাণের আত্মত্যাগের ঘটনা এটাই প্রথম। বিশ্ববাসীর কাছে এটা বাঙালিদের জন্য বিরাট এক গৌরবোজ্জল ইতিহাস। এমন একটি ইতিহাস রচনায় যাঁর নেতৃত্ব ছিল অগ্রগামী, তিনিই নিঃসন্দেহে বাঙালি জাতির এক কীর্তিমান বীরপুরুষ।

ভাষা আন্দোলনের পর তিনি ছাত্র ইউনিয়ন গঠনে ভূমিকা রাখেন এবং পরে সংগঠনটির সভাপতি হন। এরপর কমিউনিস্ট আন্দোলনে সক্রিয় হন। ১৯৫৪ সালে পাবনা জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সম্পাদক হন আব্দুল মতিন। মওলানা ভাসানী ন্যাপ গঠন করলে তিনি ১৯৫৭ সালে তাতে যোগ দেন। ১৯৬৮ সালে তিনি পাবনা জেলাকে ভিত্তি করে পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল)-এর ভেতরে আলাউদ্দিন আহমদকে নিয়ে এক উপদল গড়ে তোলেন। পরে তিনি দেবেন শিকদার, আবুল বাশার, আলাউদ্দিন আহমদ ও নুরুল হক চৌধুরীর সহায়তায় পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি গঠন করেন। টিপু বিশ্বাস, আলাউদ্দিন আহমদ ও তাঁর নেতৃত্বে পাবনা জেলার জনগণ মুক্তিযুদ্ধে সাহসী ভূমিকা পালন করেন। চীনকে অণুসরণকারী বামপন্থি দলগুলোর নানা বিভাজনের মধ্যেও আবদুল মতিন সক্রিয় ছিলেন রাজনীতিতে। ১৯৯২ সালে তিনি বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি গঠনে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। ২০০৬ সালে ওয়ার্কার্স পার্টি থেকে তিনি পদত্যাগ করেন। পরবর্তীকালে ২০০৯ সালে হায়দার আকবর খান রনোর নেতৃত্বে ওয়ার্কার্স পার্টি (পুনর্গঠন) গঠিত হলে আবদুল মতিন তাদের সঙ্গে যোগ দেন। পরবর্তীতে ২০১৩ সালে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (পুনর্গঠিত) ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট লীগ ঐক্যবদ্ধ হয়ে বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ গঠিত হয় এবং আবদুল মতিন নবগঠিত বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাথে ঐক্যবদ্ধ হন। তিনি এই পার্টির কেন্দ্রীয় উপদেষ্টামণ্ডলীর অন্যতম সদস্য মনোনীত হন এবং আমৃত্যু তিনি এই পদে আসীন ছিলেন।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার দীর্ঘ সময় পরও সর্বস্তরে বাংলা চালু না হওয়ায় ক্ষোভ ছিল আবদুল মতিনের। তিনি এই প্রসঙ্গে বলেন, “যে ভাষার জন্য সংগ্রাম হলো, জীবন দিতে হলো, সেই বাংলা এখনও সর্বস্তরে চালু হয়নি। এটা কোনোভাবেই ঠিক নয়। মনে রাখতে হবে, বাঙালিদের ভালো করে ইংরেজি শিখতে হলেও বাংলা জানতে হবে। কারণ ভালো বাংলা ছাড়া ভালো ইংরেজিও শেখা যাবে না।” সর্বস্তরে মাতৃভাষা চালুর জন্য একটি কমিশন গঠনেরও প্রস্তাব রেখেছিলেন। তিনি ভাষা শহীদদের জাতীয় বীরের মর্যাদা দেওয়ারও দাবি তুলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, “১৯৫২ এ সালাম, বরকত, জব্বার, রফিক রক্ত দিয়েছিলেন। তাদেরকে জাতীয় বীরের মর্যাদা দেওয়া উচিত। শহীদদের সম্মানিত করার অর্থ জাতিকে, আমাদের জাতীয় ঐতিহ্যকে সম্মানিত করা।” ভাষা আন্দোলনের পর ছাত্র ইউনিয়ন গঠনে ভূমিকা এবং তারপরে কমিউনিস্ট আন্দোলনে সম্পৃক্ত থেকে সারাজীবন রাজনীতির সঙ্গে কাটালেও আব্দুল মতিন ভাষা আন্দোলনকেই জীবনের সবচেয়ে বড় সাফল্য হিসেবে দেখেছেন। তাঁর সহযোদ্ধা ও বন্ধু কবি আহমদ রফিকের এক লেখায় বলা হয়েছে, “মতিন নিজেই অনেকবার বলেছেন, ‘আমার রাজনৈতিক জীবনে সাফল্য একটাই, আর তাহলো একুশের ভাষা আন্দোলন।”

তিনি তাঁর জীবদ্দশায় বেশ কিছু ইতিহাস ও রাজনৈতিক বিশ্লেষণমূলক গ্রন্থ রচনা করেছিলেন। ভাষা আন্দোলন বিষয়ে তাঁর রচিত বিভিন্ন বইয়ের মধ্যে রয়েছে ‘বাঙালী জাতির উৎস সন্ধান ও ভাষা আন্দোলন’, ‘ভাষা আন্দোলন কী এবং কেন’ এবং ‘ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস’ প্রভৃতি। এছাড়া প্রকাশিত হয়েছে তাঁর আত্মজীবনীমূলক বই ‘জীবন পথের বাঁকে বাঁকে’। তিনি বিভিন্ন সময়ে অসংখ্য সম্মাননা, পুরস্কার ও সংবর্ধনা লাভ করেছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ২০০১ সালে ‘একুশে পদক’। দৈনিক জনকণ্ঠ গুণিজন ও প্রতিভা সম্মাননা (১৯৯৮), প্রবাসী বাঙালীদের উদ্যোগে নিউইয়র্কে সম্বর্ধনা (২০০০), বাংলা একাডেমি ফেলোশিপ (২০০১), বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর সম্মাননা (২০০২), আহমদ শরীফ স্মারক পুরস্কার (২০০৩), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৪৪তম সমাবর্তন উপলক্ষে একাডেমিক কাউন্সিল কর্তৃক ‘ডক্টর অব ল’জ’ প্রদান (২০০৮), ঢাকার চারশ বছর উদযাপন উপলক্ষে ঢাকা রত্ন সম্মাননা (২০১০), মহাত্মা গান্ধি পিস অ্যাওয়ার্ড (২০১০) ইত্যাদি।

আব্দুল মতিন ২০১৪ সালের ৮ অক্টোবর সকাল ৯টায় ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এর আগে দীর্ঘদিন তিনি একই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তিনি মরণোত্তর চক্ষু ও দেহদান করেন। বাঙালির ভাষা আন্দোলন আজ আন্তর্জাতিক মর্যাদা লাভ করেছে। বিশ্ববাসীর কাছে বাঙালির ভাষা আন্দোলনের গৌরবোজ্জল ইতিহাস পৌঁছে গেছে। সেই সাথে পৌঁছে গেছে এই আন্দোলনের অগ্রনায়ক ভাষা সৈনিক আব্দুল মতিনের নাম। তিনি বাঙালির কাছে চিরকাল ‘ভাষা মতিন’ হিসেবে স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে থাকবেন।

-সৈয়দ আসাদুজ্জামান সুহান
কবি, প্রাবন্ধিক ও কলামিস্ট
নিউইয়র্ক, আমেরিকা ।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.