সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট “ফেসবুক ” তার প্লাটফর্ম থেকে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী এবং এর সহযোগী সংগঠনগুলিকে নিষিদ্ধ করেছে।

শাহরিয়া রহমান, বিশেষ প্রতিনিধি:

মিয়ানমারের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি লোক ফেসবুক ব্যবহার করে যা অনেকের কাছেই ইন্টারনেটের সমার্থক। ২০২০ সালের নির্বাচনে ভোটার জালিয়াতির দাবি বাড়ানোর জন্য সামাজিক এই যোগাযোগ মাধ্যমকে বেছে নেয় মায়ান‌মার সেনাবাহিনী।

সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখল করার পর তারা প্রতিবাদকারীদের গ্রেপ্তার করে, ইন্টারনেট ব্ল্যাকআউট করার আদেশ এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক নিষিদ্ধ ঘোষণা করে

১লা ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের পর ফেসবুকের নির্দেশিকা লঙ্ঘনের জন্য মিয়ানমার সেনাবাহিনীর মূল পেইজটি ইতিমধ্যে নিষিদ্ধ করেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক।

বুধবার এক বিবৃতিতে ফেসবুক জানায় “মারাত্মক সহিংসতা সহ ১লা ফেব্রুয়ারি অভ্যুত্থানের পর থেকে মিয়ানমারে সংঘটিত ঘটনাগুলোর পরিপ্রেক্ষিতে এই নিষেধাজ্ঞার প্রয়োজন পরেছে বলে মনে করে সংস্থাটি।

সংস্থাটি আরও জানায় যে, তাতমাডো সংযুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলিকে উক্ত প্ল্যাটফর্মে বিজ্ঞাপন দেওয়া নিষিদ্ধ করবে, আর এই নিষেধাজ্ঞাগুলি অবিলম্বে কার্যকর করা হবে এবং তা অনির্দিষ্টকালের জন্য বহাল থাকবে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.