দিয়েছিলে সেই কথা
কাছে এলে ভরে দেবে জল আর পূর্ণ করে দেবে পাতা
কিন্তু রাখনি তুমি;
মানুষ আজ মানুষের মতো গুণে নেই জানি!

প্রয়োজনে যাদের হয়েছি
তারা আজ ভুলে গেলে মন্দ লাগেনা।
আমাকে পাতার মতো-
নাড়া দেয় বিরহের ফুঁ দেওয়া হাওয়া।
প্রতিটি নিশ্বাসে প্রশ্বাসে, প্রদাহের অগ্নি বিশ্বাস
আর পুড়ে যাওয়া সুখ ভেসে ওঠে আমার।

অন্ধকারে বন্ধ হয়ে থাকা দরোজার ফোকর থেকে প্রনয়- সন্ন্যাসীর মতো নিভু চোখে তাকিয়ে দেখি- জ্যোৎস্না রাতে, ক্ষেতের ফসলে, মাঠে মাঠে, অবুঝ ধুলোর পায়ে, যতদূর চোখ যায় শুধু যাওয়া- আসার পথ!

যতিচিহ্নের মতো অজস্র আঁকিবুকি, সোজাসুজি আর যন্ত্রণাসিক্ত মায়ের অপূর্ব দুই হাত;
মায়াবী, আর্দ্র , কষ্ট-সহিষ্ণু ……

তারপর হয়তো একদিন
জীবনের সমস্ত বল্কল ছাড়িয়ে চলে যাব দূরে , উদ্বায়ুর প্রবীণ বিষ্ময়ে, উপরে একদিন !

কবি পরিচিতি :
[কবি সুপ্রভাত মেট্যার জন্ম ২৭শে সেপ্টেম্বর ১৯৭৪ পূর্ব মেদিনীপুর জেলায়। তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ৮টি । এর মধ্যে ২০১৮ সালে কলকাতা বই মেলায় “রৌদ্র চন্দনের হলুদ বাড়ি” নামক একটি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে সিগনেট প্রেস (আনন্দ পাবলিশার্স) থেকে]

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.