সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
খুব উঁচুতে, একেবারে শূন্যে অবস্থিত, এমনকি কাঁচের তৈরি বিশ্বজুড়ে এমন অনেক সেতু রয়েছে, যা সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিস্ময়কর নির্মাণ। আসুন এমন কয়েকটি সেতুর সাথে পরিচিত হওয়া যাক।
ল‍্যাংকাউই স্কাই ব্রীজ (Langkawi Sky Bridge)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Lankawi sky bridge

মালয়েশিয়ায় ল‍্যাংকাউই স্কাই ব্রীজ এর মত ভীতিকর সেতুটি যারা হেঁটে পার করার সাহস রাখেন, তাদেরকে এক অবিস্মরণীয় অভিজ্ঞতা প্রদান করে এটি। সেতুটি তাঁর পথচারীদের সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৬০০ মিটার উপর দিয়ে হাঁটিয়ে নিয়ে যায়।

রয়েল গর্জ ব্রীজ (Royal gorge Bridge)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Royal Gorge Bridge

কলোরাডোতে অবস্থিত রয়েল গর্জ ব্রীজ, যা ১৯২৯ সাল থেকে তার দর্শনার্থীদের ভয় দেখিয়ে আসছে। মাত্র সাত মাসে নির্মিত হয় সেতুটি এবং কয়েক ফুট দুর্গম ভূখন্ড বিস্তৃত এটি। উপরন্তু, এটি ১৯২৯ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু সেতুর মর্যাদা অর্জন করে।

ট্রিফট ব্রীজ (Trift Bridge)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Trift Bridge

ইউরোপের আরেকটি বিস্ময়কর সেতু হচ্ছে সুইজারল্যান্ডের ট্রিফট ব্রীজ। এটি সুইস আল্পসের একটি ঝুলন্ত সেতু, যার মাধ্যমে বিশ্বের যে কোন বোর্ডওয়াক এর চেয়ে বেশি উত্তেজনাপূর্ণ দৃশ‍্য অবলোকন করা সম্ভব। অন্যতম এই পর্যটক আকর্ষণটি ২০০৪ সালে নির্মিত হয়। অবশেষে ২০০৯ সালে অত্যধিক নিরাপদ একটি নকশায় একে প্রতিস্থাপিত করা হয়।

স্টোরসেইসান্ডেট ব্রীজ (Storseisundet Bridge)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Stosisundet Bridge

এছাড়াও নরওয়েতে অবস্থিত অসাধারণ একটি সেতু হল স্টোরসেইসান্ডেট ব্রীজ। এটি একটি অপটিক্যাল বিভ্রম তৈরি করে, এটি যে কারও হৃদস্পন্দন বৃদ্ধি করে। প্রায় ২৬০ মিটারের এই সেতুটি অতিক্রম করতে মনে হয়- গাড়ি যেন সরাসরি সমুদ্রের মধ্যে পতিত হচ্ছে।

কাকুন কানোপি ওয়াক (Kakum Canopi Walk)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Kakum Canopi Bridge

ঘানায় অবস্থিত কাকুম ক্যানোপি ওয়াক। এটিকে পথচারীদের জন্য সেতুর একটি সিরিজ বলা হয়, যা সত্যিই বিস্ময়কর। এই সিরিজে মোট সাতটি শুধু কাকুর ন্যাশনাল পার্কে লীলাভূমি জঙ্গলের ৩০০ মিটার উপরে ঝুলছে, যা পর্যটকদের জন্য শুধুমাত্র বানর প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে সংরক্ষিত।

হুসেইনি হ‍্যাংগিং ব্রীজ (Hussaini Hanging Bridge)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Hussaini Hanging Bridge

পাকিস্থানে অবস্থিত হুসেইনি হ‍্যাংগিং ব্রীজ নামে এই ঝুলন্ত সেতুটি দড়ি দিয়ে তৈরি একটি সেতু, যা দেখে মনে হয় যেকোনো মুহূর্তে ছিঁড়ে যেতে পারে। প্রায় ৩০০ মিটার উপরে রয়েছে (লেক বরিথ)। এর উচ্চতা এই তালিকার অন্যান্য সেতুর তুলনায় কিছুই নয়, তবে এটি এখনও খুব বিপদজনক। কাঠের স্লেটগুলোর মধ্যে যে দূরত্ব রয়েছে, তা একটি পা পিছলে ঢুকে যাওয়ার জন্য যথেষ্ট।

গিয়ার্লে (Geierlay)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Gierlay

জার্মানিতে অবস্থিত একটি ভীতিকর/রোমাঞ্চকর সেতু হচ্ছে গিয়ার্লে সেতু। এটি প্রায় ৩৭০ মিটার দূরত্বের একটি ওয়াকওয়ে, যা মাটি থেকে ৮০ ফুট উপরে অবস্থিত। এতে একটি রোমাঞ্চকর সেতুর সমস্ত বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেমন কাঠের তক্তা, একটি সহজ নকশা এবং নিচু রেলিং।

এল কামিনিতো দেল রে (EL Caminito Del Rey)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
EL Caminito Del Rey

এরপর রয়েছে স্পেনে অবস্থিত এল কামিনিতো দেল রে সেতুটি, যা খুবই বিপদজনক বলে মনে করা হয় কারণ ১৯৯৯ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত সেখানে মোট পাঁচজন লোক মারা যায়। একারণে এটি এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ ছিল। ভুমি থেকে ৯০ মিটারেরও বেশি উপরে একটি পাথরের মুখে নির্মিত এই ওয়াকওয়েটি ২০১৫ সালে পুননির্মাণ এবং পুনরায় চালু করা হয়, যা এড্রেনালিন বাড়ানোর জন্য একটি কাঁচের মেঝে দিয়ে সম্পূর্ণ সংস্করণ করা হয়।

উইন্ডসর সাসপেনশন ব্রীজ (Windsor Suspension Bridge)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Windsor suspension Bridge

জিব্রাল্টারে অবস্থিত উইন্ডসর সাসপেনশন ব্রীজ আরেকটি অন্যতম বিস্ময়কর দৃশ্য। এটি ২০১৬ সালে খোলা হয়েছিল, যা পাহাড়ি অঞ্চলে অবস্থিত এবং ৭০ মিটারেরও বেশি প্রসারিত, যার চারিদিকে উত্তেজনাপূর্ণ প্রাকৃতিক দৃশ্য রয়েছে।

ঝাংজিয়াজি গ্লাস ব্রীজ (Zangjiajie Glass Bridge)
সাহসী ভ্রমণকারীদের জন্য বিশ্বের কয়েকটি ভয়ংকর সেতু
Zangjiajie Glass Bridge

বিশ্বের সবচেয়ে ভয়াবহ সেতু চীনের ঝাংজিয়াজি গ্লাস ব্রীজ। কাঁচের তৈরি এই সেতুটি দিয়েই শেষ করা যাক। এটি হচ্ছে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু একটি ওয়াকওয়ে, যাকে বলা হয় কাঁচের তলা যুক্ত প্যানেল। ২০১৬ সালের পর থেকে বিস্ময়কর সুন্দর এই ব্রীজটি তার ভীতিকর স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের জন্য একটি অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *